Space For Rent

Space For Rent
শনিবার, ৩০ আগস্ট, ২০১৪
প্রচ্ছদ » গ্যালারি
  দেখেছেন :   আপলোড তারিখ : 2014-08-30
মোহামেডানের পঞ্চম শিরোপা জয়
ক্রীড়া প্রতিবেদক : মহিলা ক্রিকেট লিগের ট্রফিটা প্রায় নিজেদের সম্পত্তিই বানিয়ে ফেলেছে মোহামেডান স্পোর্টি ক্লাব লিমিটেড। এখন পর্যন্ত ছয়বার অনুষ্ঠিত হয়েছে মহিলা ক্রিকেট লিগ। যার মধ্যে পাঁচবারই ট্রফি গিয়েছে সাদা-কালোদের দখলে। এই লিগে মোহামেডানের রামরাজত্বে একবার হানা দিয়েছিল আনসার-ভিডিপি। সেটা ২০১০ সালে। সর্বশেষ চারবার অবশ্য লিগের চ্যাম্পিয়নের খাতায় একটি নামেরই পুনরাবৃত্তি হয়েছে বারবার। শনিবার ষষ্ঠ আসরের ফাইনালেও ব্যতিক্রম হয়নি। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বউ আবাহনীকে হারিয়ে মেট্রোপলিটন মহিলা ক্রিকেট লিগে শিরোপা জিতেছে মোহামেডান। লিগে এটি তাদের টানা চতুর্থ ও সব মিলিয়ে পঞ্চম শিরোপা। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে আবাহনীকে ৭৭ রানে পরাজিত করে মোহামেডান। রুমানা আহমেদের সেঞ্চুরিতে মোহামেডান প্রথমে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ২০৪ রান করে। জবাবে নির্ধারিত ৪০ ওভারে ৭ উইকেটে ১২৭ রান করতে সমর্থ হয় আবাহনী।
দেশের ক্রীড়াঙ্গনে আবাহনী-মোহামেডান লড়াইয়ের আবেদন এখনও অনেক। মহিলা লিগে হয়তো সেভাবে ধরা দেয়নি দুই চিরশত্রু ক্লাবের লড়াই। তারপরও মিরপুরে গতকাল ভালোই ব্যাটে-বলে লড়াই করেছে দুদল। সকালে টসে হেরে ব্যাট করতে নামা মোহামেডানের শুরুটা ভালো হয়নি। ইনিংসের চতুর্থ বলে আয়েশা রহমান শুকতারার উইকেট হারায় সাদা-কালো শিবির। ২৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে যায় সালমা খাতুনের দল। রুমানা আহমেদের সঙ্গে জুটি বাঁধেন তাহিন তাহেরা। বিপর্যয় সামলে পাল্টা আক্রমণ শুরু করে মোহামেডান একমাত্র রুমানার ব্যাটে। অবশ্য ইনিংসে রুমানা ছাড়া কেউ সেভাবে থিতু হতে পারেননি। একাই আবাহনীকে ব্যাট হাতে পোড়ালেন তিনি। তুলে নিয়েছেন সেঞ্চুরি, যা মোহামেডানকে বড় স্কোর পাইয়ে দেয়। ৫০ বলে হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন রুমানা। জাহানারার বলে বোল্ড হওয়ার আগে ১৫টি চারে ৯১ বলে খেলেন ১০০ রানের ইনিংস তিনি। তাহিন তাহেরা ১৯, তাজিয়া করেন ২০ রান। আবাহনীর অধিনায়ক জাহানারা আলম ৩৪ রানে ৩ উইকেট নেন।   
২০৫ রানের টার্গেট আবাহনীর ব্যাটিংলাইনের জন্য অনেক বড় কিছুই ছিল। পাহাড় পাড়ি দেয়ার মতো কঠিন কর্মে শেষ পর্যন্ত সফলও হয়নি আবাহনী। লতা মণ্ডলের হাফ সেঞ্চুরি সত্ত্বেও বেশিদূর যেতে পারেনি দলটি। লতা মণ্ডল ৫৪, শারমিন ২২, মুনতাহা ১৫, শারমিন সুলতানা ১০ রান করেন। মোহামেডানের সালমা ও ইতি মণ্ডল ৩টি করে উইকেট নেন।
ফাইনালের ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন সেঞ্চুরিয়ান রুমানা আহমেদ। রানার্সআপ আবাহনীর লতা মণ্ডল লিগের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হন। তিনি সেরা রান সংগ্রাহক (৩১১), সেরা উইকেটশিকারির (১৮ উইকেট) পুরস্কারও জেতেন।
রোল অব অনার
সাল            চ্যাম্পিয়ন        রানার্সআপ
২০১৪        মোহামেডান        আবাহনী
২০১৩        মোহামেডান        শেখ জামাল ধানমণ্ডি
২০১২        মোহামেডান        গুলশান ইয়ুথ    
২০১১        মোহামেডান        শেখ জামাল ধানমণ্ডি
২০১০        আনসার-ভিডিপি    মোহামেডান
২০০৯        মোহামেডান        আনসার-ভিডিপি
(আগস্ট ৩০, ২০১৪)