Space For Rent

Space For Rent
সোমবার, ০১ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
প্রচ্ছদ » গ্যালারি
  দেখেছেন :   আপলোড তারিখ : 2014-09-01
গাঙ্গুলির দলে মামুনুল
ক্রীড়া প্রতিবেদক : ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে ( আইপিএল)  বাংলাদেশের অনেক ক্রিকেটার বিভিন্ন দলে খেললেও সাকিব শাহরুখ খানের কলকাতা নাইট রাইডার্সে খেলার মাধ্যমে দুই বাংলাকে যেন আরও বেশি করে বিনা সুতার মালা গেঁথেছিলেন। একে তো বাংলা ভাষার কারণে অপরদিকে সাকিব— এই দুই মিলে আইপিএলে বাংলাদেশের কোটি কোটি মানুষের সমর্থন ছিল সাকিবের কলকাতা নাইট রাইডার্সের প্রতি। এবার দুই বাংলার সেই বন্ধনকে আরও গাড় করতে যাচ্ছেন জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক মামুনুল। আইপিএলের আদলেই ইন্ডিয়ান সুপার লিগে (আইএসএল)  তিনি খেলতে যাচ্ছেন ভারতের সাবেক ক্রিকেটার সৌরভ গাঙ্গুলির অ্যাটলেটিকো দি কলকাতার হয়ে। ক্রিকেট ও ফুটবলের মাঝে একইভাবে ভারতের কাবাডি টুর্নামেন্টেও বাংলাদেশের জিয়াউর রহমান খেলে এসেছেন। তবে তিনি কলকাতার কোনো ক্লাবে খেলেননি। খেলেছিলেন মুম্বাইয়ের হয়ে।

একসময় কলকাতা ফুটবল লিগ দাবড়িয়ে বেড়িয়েছেন বাংলাদেশের ফুটবলাররা। সেটি আশির দশকের কথা। মরহুম মোনেম মুন্না তো কলকাতার ঘরে ঘরে পরিচিত হয়ে উঠেছিলেন। তিনি ছাড়াও আরও বেশ কয়কজন ফুটবলার কলকাতা লিগে খেলেছেন। তারা অবশ্য মুন্নার মতো নাম-ডাক অর্জন করতে পারেননি। এর মাঝে অবশ্য বাংলাদেশের খেলার মানেরও অবনতি ঘটে। সেখানে দীর্ঘ বিরতির পর মামুনুলের সুযোগ পাওয়ার মাধ্যমে ফুটবলের নবজাগরণের কথাই মনে করিয়ে দেয়। যদিও ফুটবলের সেই জাগরণ আনার চেষ্টায় ব্রত হয়েছেন বাফুফের সভাপতি সাবেক নন্দিত ফুটবলার কাজী সালাউদ্দিন। কিন্তু মামুনুলরা কিন্তু কলাকাতায় বিপ্লব ঘটিয়ে এসেছেন গত বছর। আইএফ শিল্ড খেলতে গিয়ে শেখ জামাল  ধানমণ্ডি  ক্লাব ভারতের এক একটি শক্তিশালী  দলকে পেছনে ফেলে ফাইনালে পৌঁছে গিয়েছিল। শিরোপার সম্ভাব্য দাবিদার হয়েও শেষ পর্যন্ত রেফারির বিতর্কিত  বাঁশি বাজানো শেখ জামালকে আর চূড়ান্ত সাফল্য অর্জন করতে দেয়নি। গোটা টুর্নামেন্টে শেখ জামালের বিদেশি ফুটবলার হাইতির সনি নর্দের খেলা ভারতবাসীর নজর কাড়ার পাশাপাশি মামুনুলের খেলাও চোখে পড়েছিল। তারই ধারবাহিকতায় তিনি সুযোগ পেয়েছেন।

মামুনুলের সঙ্গে কথা পাকা হলেও এখনও চুক্তি হয়নি। সেপ্টেম্বরের  ৪ অথবা ৫ তারিখ তার সঙ্গে চুক্তি হতে পারে। তখন ক্লাবটির কর্মকর্তাদের ঢাকার আসার কথা রয়েছে।  মামুনুলকে এই ক্লাবে খেলার সুযোগ করে দিয়েছেন শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের সভাপতি মঞ্জুর কাদের। কথাটি অকপটে স্বীকার করেছেন মামুনুল নিজেই। তিনি বলেন, ‘কাদের ভাই আমাকে ইন্ডিয়ান সুপার লিগে খেলার সুযোগ করে দিয়েছেন। তার সহযোগিতা না পেলে আমার পক্ষে হয়তো  এ আসরে খেলা সম্ভব হতো না। তাকে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

কথা পাকা হলেও চূড়ান্ত চুক্তি না হওয়াতে মামুনুল এখনই মিডিয়ায় জানাতে ইচ্ছুক ছিলেন না। কিন্তু এ রকম একটি সুসংবাদ আর গোপন থাকেনি। সংবাদ জানার পর তার মুঠো ফোন ব্যস্ত হয়ে ওঠে। তিনি বলেন, ‘বিষয়টি আমি এখনই  কাউকে জানাতে চাচ্ছিলাম না। কলকাতার ক্লাবের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। ক্লাবের কর্মকর্তাদের ৪ থেকে ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকায় আসার কথা রয়েছে। তখন চুক্তি হবে।’

কলকাতার এই আসরে বাংলাদেশের একজন খেলোয়াড় হিসেবে খেলার সুযোগ পেয়ে উত্ফুল্ল মামুনুল নিজেকে অনেক বেশি সম্মানিতবোধ করছেন। যে কারণে তিনি অর্থকে মুখ্য করে দেখছেন না। তিনি বলেন, ‘আমাদের ফুটবল সম্পর্কে ভারতের ইতিবাচক ধারণা রয়েছে। এটি আমাদের জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি। তাই অর্থকে আমি বড় করে দেখছি না। আমার কাছে এটি সম্মানের বিষয়।’

সবকিছু ঠিক থাকলে মামুনুল এশিয়ান গেমসে অংশ নিয়ে দেশে ফিরে আসার পর কলকাতা যাবেন। মামুনুলের ক্লাবের মালিক সৌরভ গাঙ্গুলি হলেও এখানে অংশীদারিত্ব আছে স্প্যানিশ ক্লাব অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদেরও। যে কারণে ক্লাবের নামের একটি অংশে আছে অ্যাটলেটিকো। টুর্নামেন্টে অংশ নেবে আটটি ক্লাব। বাকি সাতটি হলো— চেন্নাই তিতান্স, দিল্লি ডায়নামোজ, গোয়া, পুনে সিটি, কেরালা ব্লাটার্স, মুম্বাই সিটি ও নর্থইস্ট ইউনাইটেড। প্রতিটি দলে একজন তারকা (মার্কি) বিদেশি ফুটবলার নিতে পারবে। মামুনুলের দলে ইতিমধ্যে নেয়া হয়েছে স্পেনের লুইস গার্সিয়াকে। মামুনুলের ক্লাব ছাড়া আরও তিনটি ক্লাবও তাদের কোটা পূরণ করেছে। এ ছাড়া একটি ক্লাব সাতজন বিদেশি খেলোয়াড় রেজিস্ট্রেশন করাতে পারবে। মামুনুল যাচ্ছেন সেই সাত জনের একজন হয়ে।

(এইচআর/সেপ্টেম্বর ০১, ২০১৪)