Space For Rent

Space For Rent
বুধবার, ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
প্রচ্ছদ » সম্পাদকীয়
  দেখেছেন :   আপলোড তারিখ : 2014-09-03
নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুনঃযাত্রা
ভারতের বিহার রাজ্যের একটি প্রাচীন উচ্চশিক্ষা কেন্দ্র নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়। প্রায় ১৬শ বছর আগে (৪১৩ খ্র্রিস্টাব্দ) প্রতিষ্ঠিত হয়ে টিকে ছিল ১১৯৩ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত। বিশ্বের প্রথম আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় এটি। ইতালির বোলোনিয়ায় যখন ইউরোপের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, নালন্দার বয়স তখন ৬৫০ বছর। গত সোমবার সেই বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষাকার্যক্রম আবার চালু হলো। ১৫ শিক্ষার্থী ও ১১ শিক্ষকের পদচারণায় আট শ বছর পর মুখরিত হলো নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়। ভারত, চীন, জাপান, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর ও অস্ট্রেলিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশের যৌথ উদ্যোগে চালু করা হলো বিশ্ববিদ্যালয়টি। ২০২০ সালের মধ্যে আবাসনের সব ব্যবস্থা হবে। বিহারের রাজধানী পাটনা থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে বৌদ্ধদের তীর্থস্থান রাজগির শহরে অস্থায়ী ক্যাম্পাসে এর কার্যক্রম শুরু হলো। সেখান থেকে ১২ কিলোমিটার দূরে আজও দাঁড়িয়ে আছে দ্বাদশ শতকের প্রাচীন নালন্দার ধ্বংসাবশেষ। তুর্কি বাহিনীর অভিযানে সেটি ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। নোবেলজয়ী অমর্ত্য সেন বিশ্ববিদ্যালয়টির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান। নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ে তত্কালীন জ্ঞান-বিজ্ঞানের সব শাখাতেই চর্চার সুযোগ থাকায় সুদূর কোরিয়া, জাপান, চীন, তিব্বত, ইন্দোনেশিয়া, পারস্য এবং তুরস্ক থেকে জ্ঞানপিপাসুরা ভিড় করতেন। নালন্দা মূলত বৌদ্ধধর্মের গবেষণা ও ধর্মচর্চার জন্য প্রতিষ্ঠিত হলেও এখানে পড়ানো হতো হিন্দুদর্শন, বেদ, ধর্মতত্ত্ব, যুক্তিবিদ্যা, ব্যাকরণ, ভাষাতত্ত্ব, চিকিত্সাবিজ্ঞান ও বিজ্ঞানের অনেক বিষয়। সে সময় এখানে পাঠগ্রহণ করতেন প্রায় ১০ হাজার শিক্ষার্থী। তাদের পাঠদানে নিযুক্ত ছিলেন ২ হাজার শিক্ষক। প্রাচীন ভারতের এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী-শিক্ষার গুণগতমান, প্রশাসনিক ব্যবস্থা, যশ-খ্যাতি, উন্নত অবকাঠামো এবং সামগ্রিক পরিবেশ বিবেচনা করে আধুনিককালের পণ্ডিতরা নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়কে তত্কালীন বিশ্বের শ্রেষ্ঠ বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদায় অভিহিত করেছেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নোবেলজয়ী হয়ে বাঙালি জাতি ও বাংলাভাষাকে যেমন বিশ্বব্যাপী সমাদৃত করেছেন, তেমনই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে বিশ্ব ইতিহাসে খ্যাত হয়েছেন। শুধু বঙ্গবন্ধু আর কবিগুরুই নন, সেই আদিকালে বাঙালিদের বিশ্বে গৌরবের শীর্ষে নিয়ে গিয়েছিলেন আরও একজন পণ্ডিত, তার নাম মহাস্থবির শীলভদ্র। তিনি প্রাচীন ভারতের নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান আচার্য ছিলেন। বিশ্বের বহু দেশে তার কীর্তি সংরক্ষিত রয়েছে। আজকের নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ও এশিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মধ্যে নতুন করে সম্পর্কের সূচনা করুক— এটাই বিশ্ববাসীর প্রত্যাশা।