Space For Rent

Space For Rent
বুধবার, ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
প্রচ্ছদ » জাতীয়
  দেখেছেন :   আপলোড তারিখ : 2014-09-03
’৪৭ থেকে দুইজন সরকারি কর্মকর্তার শাস্তি হয়েছে
সংসদ প্রতিবেদক : অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, আমরা আইন করি, আবার ফাঁকফোকরও রাখি নিজেদের জন্য। আমরা এত বেশি দুর্নীতিতে লিপ্ত যে, কেউ দুর্নীতি করলে তার পক্ষে সাক্ষ্য দেয়ারও কাউকে পাওয়া যায় না। সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী দুর্নীতি করেন। কিন্তু তাদের কোনো শাস্তি হয় না। শাস্তি হয় কেরানির। অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, দুর্নীতির দায়ে ’৪৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত মাত্র দুইজন সরকারি কর্মকর্তার শাস্তি হয়েছে। এর মধ্যে স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে যার শাস্তি হয়েছে তা হয়েছে সামরিক আদালতে। তিনি বলেন, আমি কথাগুলো মনের দুঃখে বলেছি।
বুধবার সংসদে প্রশ্নোত্তরে এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী একথা বলেন। জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদের সম্পূরক প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, দুর্নীতি প্রতিরোধে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ ও অর্থ ব্যবস্থাপনার সফলতার কারণে আন্তর্জাতিক রেটিংয়ে ভারত কালো তালিকাভুক্ত হলেও বাংলাদেশ সাদা তালিকায় রয়েছে। অর্থ পাচার রোধে সরকার কাজ করছে।
তিনি বলেন, আমাদের দেশে কীভাবে কালো টাকা হয়, সেটা আমরা সবাই জানি। সবচেয়ে বেশি কালোটাকা হয় জমি হস্তান্তর নিয়ে। ১০ কোটি টাকায় জমি বিক্রি করলে সেটা রেজিস্ট্রি করা  হয় ২৫ লাখ টাকায়। এখানে কর ফাঁকি দেয়ার জন্য এমন করা হচ্ছে।
তিনি আরও বলেন, আপনারা এর বিরুদ্ধে সম্মিলিতভাবে ব্যবস্থা নিতে পারেন। প্রয়োজনে ট্যাক্স কমিয়ে এক পার্সেন্ট করা হোক। আমি এ কথা সবাইকে জানাচ্ছি। আপনারা রাজি হলে আগামী বাজেটে সেটাই করব।
(সেপ্টেম্বর ০৩, ২০১৪)