Space For Rent

Space For Rent
মঙ্গলবার, ০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
প্রচ্ছদ » রাজধানী
  দেখেছেন :   আপলোড তারিখ : 2014-09-09
তথ্য সংগ্রহে অভিযোগ দু পক্ষেরই
গাজী শাহনেওয়াজ : ঢাকা মহানগরীর ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে ‘তথ্য সংগ্রহকারী’ হিসেবে সম্পৃক্ত হওয়া বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সুবিধাজনক সময়ে নিজ এলাকায় না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন অনেক নতুন ভোটার। আবার তথ্য সংগ্রহকারীরা বলছেন, অনেকের বাড়িতে গিয়ে যেমন কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না, তেমনি বহুতল বাড়িতে নিচ থেকে কলিং বেল বাজালে ওপর থেকে কেউই খুলতে আসেন না। দারোয়ানও তাদের ঢুকতে দেন না। এ পরিস্থিতিতে নির্বাচন কমিশন থেকে বলা হচ্ছে, ভোটার করা যেমন আমাদের দায়িত্ব, তেমনি ভোটারদেরও সহযোগিতা করা কর্তব্য।
 
এদিকে গত আট দিনে ঢাকা মহানগরীতে এক লাখের মতো নতুন ভোটার পাওয়া গেছে। যদিও নির্বাচন কমিশনের লক্ষ্যমাত্রা প্রায় আড়াই লাখ। 
নির্বাচন কমিশন থেকে বলা হয়েছে, তথ্য সংগ্রহকারীরা বিদ্যালয়ে শিক্ষকতার বাইরে নিজ দায়িত্বভুক্ত এলাকাকে কয়েক ভাগে ভাগ করে তথ্য সংগ্রহ করছেন; তাই হয়তো অনেক এলাকার নতুন ভোটার তাদের পাচ্ছেন না। কমিশনের কর্মকর্তারা বলছেন, অনেক ভোটার অবশ্য সারাদিন বাড়ি থাকেন না, তালাবদ্ধ দেখে তথ্য সংগ্রহকারীরা ফিরে যেতে বাধ্য হন। গত ১ সেপ্টেম্বর রাজধানী ঢাকা মহানগরীতে তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু হয়। ৯ ও ১০ সেপ্টেম্বর দুদিন সময় আছে।
 
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মোহাম্মদপুর, ধানমণ্ডি, মিরপুর, ফার্মগেট ও আগারগাঁও-তালতলা এলাকায়  গত আটদিনেও অধিকাংশ ভোটার তথ্য সংগ্রহকারীদের দেখা পাননি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মোহাম্মদপুরের মোহাম্মদী হাউজিংয়ের ৫ নং রোডের ১৮৪ নং বাড়ির ফয়সাল আবদুল্লাহ গতকাল বলেন, ‘তথ্য সংগ্রহকারীরা বাড়ি বাড়ি এসে আমাদের ভোটার করবেন বলে কমিশন থেকে জানানো হলেও তাদের দেখা পাইনি।’ একই ধরনের অভিযোগ মিরপুরের কালশীতে পাওয়া গেছে। ব্লক-ই’র ৪ নং রোডের ২৪ নং বাড়ির মালিক রেনু মিয়া বলেন, ‘আমার বাড়িতে তথ্য সংগ্রহকারীরা আসেননি। তা হলে কি আমরা ভোটার হতে পারব না।’
 
নির্বাচন কমিশনার মো. শাহ নেওয়াজ গতকাল সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, হালনাগাদে কেউ ভোটার হতে না পারলে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। আইন অনুযায়ী বাদপড়া ভোটারদের সারা বছরই ভোটার করা হয়। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে সংশ্লিষ্ট থানা বা উপজেলা নির্বাচন কার্যালয়ে গেলে যে কোনো সময় ভোটার হওয়া যাবে।

(একে/সেপ্টেম্বর ০৯, ২০১৪)