Space For Rent

Space For Rent
মঙ্গলবার, ০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
প্রচ্ছদ » জাতীয়
  দেখেছেন :   আপলোড তারিখ : 2014-09-09
ড. কামালের নেতৃত্বে কমিটি
বর্তমান প্রতিবেদক : বিচার বিভাগের স্বাধীনতা রক্ষায় ড. কামাল হোসেনকে আহ্বায়ক করে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা সংরক্ষণ কমিটি গঠন করেছেন দেশের বিশিষ্ট আইনজীবীরা। বিচারপতিদের অপসারণের ক্ষমতা আইন প্রণেতাদের হাতে ফিরিয়ে আনতে সংবিধান সংশোধনের প্রস্তাব সংসদে উত্থাপনের পর এর বিরোধিতায় কমিটি গঠন করা হলো। এদিকে এই কমিটি ঘোষণার পরপরই ওই কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম ও ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদ এই কমিটিতে তারা নেই বলে সাংবাদিকদের জানান।
মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির এক আলোচনা সভা শেষে এ কমিটির ঘোষণা দেন সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন। এ কমিটিতে সদস্য সচিব করা হয়েছে ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনকে ও সহ-সদস্য সচিব করা হয়েছে গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির সভাপতি সুব্রত চৌধুরীকে।
কমিটির যুগ্ম আহ্বায়করা হচ্ছেন— ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম, ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন, খন্দকার মাহবুব হোসেন, ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, ড. শাহদীন মালিক। কমিটি ঘোষণার সময় তারা সবাই আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন। সভা শেষে ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদ বলেন, এই কমিটিতে আমি নেই; কারণ খন্দকার মাহবুব হোসেন কমিটি করার কে? কমিটি করলে সভা আহ্বানকারী গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতি করবে। কমিটি ও নাম ঘোষণার আগে আমার সঙ্গে আলোচনা করা হয়নি। একই কথা জানিয়ে ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম বলেন, এই কমিটিতে আমি নেই। কমিটি ঘোষণার আগে আমার সঙ্গে আলোচনা হয়নি।
এর আগে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে ‘স্বাধীন বিচার বিভাগ: বিচারক নিয়োগ পদ্ধতি, বিচারকদের দায়বদ্ধতা ও অভিশংসন’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম, ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন, খন্দকার মাহবুব হোসেন, ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, ড. শাহদীন মালিক ও ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন।
উচ্চ আদালতের বিচারপতিদের অভিশংসন ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে দেয়ার লক্ষ্যে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বিল সংসদে উত্থাপন হয়। এরই এক দিনের মাথায় এই কমিটি গঠন করলেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবীরা। সংসদের চলতি অধিবেশনেই এই সংশোধনী পাস হতে পারে।
১৯৭২ সালে ড. কামাল হোসেনদের প্রণীত সংবিধানে বিচারপতিদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে ছিল। পরে তা সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের হাতে ন্যস্ত করা হয়। এখন তা আবার আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নিচ্ছে আওয়ামী লীগ।
(এইচআর/সেপ্টেম্বর ০৯, ২০১৪)