মাস্ক পরা নিশ্চিতে আরও কঠোর হচ্ছে সরকার
মন্ত্রিসভায় চূড়ান্ত অনুমোদন চলচ্চিত্র শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট আইন, বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ ৪৪ হাজার মিলিয়ন ডলার, সরকারি চাল পেয়েছে ১ কোটি ৬ হাজার পরিবার
Published : Tuesday, 24 November, 2020 at 1:20 PM, Update: 24.11.2020 1:26:32 PM, Count : 342

বর্তমান প্রতিবেদক: করোনা মহামারির মধ্যে জনগণকে মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে জরিমানায় কাজ না হলে শাস্তি আরও কঠোর করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। সচিবালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকের ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব এ কথা জানান। গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হসিনার সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। গণভবন প্রান্ত থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রীরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এতে যোগ দেন। মন্ত্রিসভা বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় কোন বিষয় উঠে এসেছে জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আবারও মাস্কের বিষয়টি খুবই স্ট্রংলি এসেছে। গতকাল (গত রোববার) বিভাগীয় কমিশনররা জানিয়েছেন, গত সাত দিন ধরে তারা ম্যাসিভলি ফাইন (বড় ধরনের জরিমানা) করছেন। গতকালও (গত রোববার) কয়েক হাজার লোককে জরিমানা করা হয়েছে। তিনি বলেন, আমরা বলেছি আরও এক সপ্তাহ দেখতে। জরিমানায়ও যদি মানুষ সচেতন না হয় তাদের আরও মোটিভেশন করুন, তারপর আরেকটু স্ট্রং পানিশমেন্টে (কঠোর শাস্তি) যেতে হবে। ঢাকায় গত রোববার ৩৭টি জায়গায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে বলেও জানান খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। কারাবাসের সাজা দেয়া হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ বিষয়ে দেখা যাক। হয়তো ফাইনও বাড়িয়ে দেয়া হতে পারে। এখন হাজার টাকা, ৫০০ টাকা ফাইন করছে সেটা বাড়িয়ে ৫ হাজার টাকা করে দিতে পারে। আমরা আরেকটু স্ট্রং পানিশমেন্টে যেতে বলছি। যারা মোবাইল কোর্ট করবে তারা মাস্কও সঙ্গে নিয়ে যাবে। যাতে মানুষকে ফাইন করার সঙ্গে সঙ্গে ওটাও দিয়ে দেয়া যায়। গত রোববার কমিশনার কনফারেন্সে ধর্ম ও শিক্ষা সচিবও ছিলেন। নিজ নিজ ক্ষেত্রে আরও বড় ধরনের প্রচারণার জন্য তাদেরকে বলে দেয়া হয়েছে। হাসপাতালে রোগী বেড়ে গেছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সেটা থেকে মনে হচ্ছে যে, এটা (কোভিড-১৯) আরেকটু বেড়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী আজকে বলেছেন, আরও বেশি বেশি করে প্রচার করো, ফোর্স করো যাতে মানুষ মাস্ক ব্যবহার করে। মাস্ক ব্যবহার না করলে যতই ভ্যাক্সিন বলেন আর ওষুধ বলেন প্রোটেকশন কোনো কাজে আসবে না।

চূড়ান্ত অনুমোদন পেল চলচ্চিত্র শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট আইন: দেশের চলচ্চিত্র শিল্পের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সার্বিক কল্যাণ এবং তাদের পেশাদারিত্ব নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট আইন-২০২০ এর খসড়ার চ‚ড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। মন্ত্রিসভা বৈঠকের ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, অসচ্ছল ও অক্ষম শিল্পীদের কল্যাণ ও চিকিৎসায় আর্থিক সহায়তা দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার সাথে সামঞ্জস্য রেখে আইনটি তৈরি করা হয়েছে। তিনি বলেন, এই আইনের মূল লক্ষ্য হবে চলচ্চিত্র শিল্পীদের কল্যাণ সাধন, তাদের জন্য বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প গ্রহণ, অসচ্ছল, পেশাগত কাজে অক্ষম শিল্পীদের প্রয়োজনীয় আর্থিক সহায়তা প্রদান ও অসচ্ছল শিল্পীদের মৃত্যু হলে তাদের পরিবারকে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান। এই ট্রাস্ট পরিচালনার জন্য একটি পরিচালনা বোর্ড থাকবে। যার চেয়ারম্যান থাকবেন তথ্যমন্ত্রী। সরকার কর্তৃক নিয়োগ প্রাপ্ত একজন ব্যবস্থাপনা পরিচালকও থাকবেন এখানে। তিনি বলেন, এই ট্রাস্টের আওতায় একটি তহবিল থাকবে। সেখানে ফান্ড তৈরি করে কার্যক্রম চলবে। তহবিলে একটি সিডমানি দেওয়া হবে এবং পরবর্তীতে বাজেট থেকে বাৎসরিক একটা বরাদ্দ দেওয়া হবে। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অধীনে শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট নামে আরেকটি আইন রয়েছে। যে সমস্ত চলচ্চিত্র শিল্পীরা এই আইনের আওতায় থাকবেন তারা ওই আইনের আওতায় কোনো সহায়তা পাবেন না। এদিকে কেবিনেটে অনির্ধারিত আলোচনায় কোভিড-১৯ মোকাবেলায সরকারের সকল স্তরে গৃহীত কার্যক্রম নিয়ে আলোচনার সময় ব্যাপকভাবে মাস্ক ব্যবহারের বিষয়টি উঠে আসে। প্রধানমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট সকলকে এই বিষয়টি সুন্দরভাবে পরিচালনা করার জন্য নির্দেশ দেন এবং মাস্ক ব্যবহার না করার কারণে মোবাইল কোর্টে জরিমানার পরিমাণ বাড়ানোর ইঙ্গিত দেন বলেও খন্দকার আনোয়ার উল্লেখ করেন।

বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ ৪৪ হাজার মিলিয়ন ডলার: বাংলাদেশের শুরু থেকে এখনও পর্যন্ত বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ৪৪ হাজার ২৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। এটি জিডিপির ১৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ। এই ঋণের মধ্যে ৩৭ শতাংশ বিশ্বব্যাংকের, ২৪ দশমিক ৪৬ শতাংশ এডিবির, জাইকার ১৭ দশমিক ৯ শতাংশ, চীনের ৬ দশমিক ৮১ শতাংশ, রাশিয়ার ৬ দশমিক ১৪ শতাংশ, ভারতের এক দশমিক ৩ এবং অন্যান্য সংস্থা থেকে নেওয়া ঋণের হার ৬ দশমিক ৪ শতাংশ। মন্ত্রিপরিষদ সচিব
বলেন, দেশের অর্থনীতি শক্তিশালী হওয়ায় বৈদেশিক সহায়তায় অনুদানের পরিমাণ ন্যূনতম পর্যায়ে নেমেছে। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বৈদেশিক সহায়তায় অনুদানের পরিমাণ ছিল ৮৪ থেকে ৮৬ শতাংশ, বাকিটা ছিল ঋণ। এখন সেই অনুদানের পরিমাণ নেমেছে তিন শতাংশে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ২০০৯-১০ সালে দেশে অনুদান এসেছে ৩০ শতাংশের মতো, ৭০ শতাংশের মতো আসল ঋণ। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে অনুদান আসছে সর্বোচ্চ পাঁচ শতাংশের মতো, আর ঋণ হিসেবে এসেছে ৯৫ শতাংশ। ১৯৭১-৭২ সালে বাংলাদেশের বৈদেশিক সহায়তার আওতায় অনুদান ছিল সর্বোচ্চ ৮৪-৮৫-৮৬ শতাংশ, ঋণ ছিল ৬ থেকে ৮ শতাংশ। ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে অনুদান আরও কমে গেছে, ২/৩ শতাংশের মধ্যে রয়েছে। ৯৭ শতাংশেই আসছে লোন হিসেবে। আমরা আর দানের ওপর নির্ভর করছি না।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, রি-পেমেন্টের ক্ষেত্রে কোনোদিনই খেলাপি হয়নি বাংলাদেশ। তিনি জানান, ১৯৯৭-৯৮ সালে বাংলাদেশের বৈদেশিক সহায়তার অর্থছাড় ছিল ৭৪৮ মিলিয়ন ডলার। তখন বাংলাদেশের জিডিপির ৩০ দশমিক ৪৭ শতাংশ ছিল ঋণের পরিমাণ। ২০১৯-২০ সালে বাংলাদেশের অর্থছাড়ের পরিমাণ হচ্ছে সাত হাজার ১২১ মিলিয়ন ডলার, এটা জিডিপির ১৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ। ১৯৮৯-৯০ অর্থবছরে বাংলাদেশের এডিপি (বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি) ছিল পাঁচ হাজার ১০৩ কোটি টাকা। এরমধ্যে বৈদেশিক সাহায্য ছিল তিন হাজার ২৫৬ কোটি টাকা। এই এডিপির ৬৩ শতাংশ ছিল বৈদেশিক সহায়তা। ২০০৯-১০ অর্থবছরে এডিপির বরাদ্দ ২৮ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। এরমধ্যে বৈদেশিক সহায়তা ছিল ১১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। এডিপিতে ফরেন এইডের কন্ট্রিবিউশন ছিল ৩৯ দশমিক ৬৫ শতাংশ।
আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এডিপির পরিমাণ এক লাখ ৭৬ হাজার ৬২০ কোটি টাকা, এতে বৈদেশিক সহায়তা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫১ হাজার ৬৬০ কোটি টাকা। বৈদেশিক সাহায্য বাড়লেও শতকরা হিসাব নেমে এসেছে ২৯ দশমিক ২৫-এ। আমাদের নিজস্ব বিনিয়োগ এত বেড়ে গেছে যে, বাইরের লোন এলেও এটা শতাংশের হারে অনেক নিচে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরও বলেন, বৈদেশিক ঋণ পরিশোধ করছি জিডিপির ৫ দশমিক ৫ শতাংশ। ২০ শতাংশ পর্যন্ত সেফটি রেঞ্জ। আমরা অনেক নিচে আছি। আমাদের ঝুঁকি নেই। বৈদেশিক ঋণ যখন জিডিপির ৪০ শতাংশ বা এর বেশি হয়ে যায়, তখন ঝুঁকি থাকে। আমাদের জিডিপির তুলনায় বৈদেশিক ঋণ হলো ১৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ।
সরকারি চাল পেয়েছে ১ কোটি ৬ হাজার পরিবার: ঘূর্ণিঝড় আম্পান ও করোনাভাইরাস মহামারির প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত দেশের এক কোটি ৬ হাজার পরিবারকে সরকার চাল দিয়েছে, যার পরিমাণ দুই লাখ ৩৫ হাজার ৪২৭ মেট্রিক টন।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, মহামারি করোনাভাইরাস ও ঘূর্ণিঝড় আম্পান মোকাবিলায় চাল ছাড়াও নগদ ১০০ কোটি ৯৬ লাখ ৭২ হাজার ২৬৪ টাকা, শিশুখাদ্য কেনা বাবদ ২৯ কোটি ১৪ লাখ টাকা ও গো-খাদ্য কেনা বাবদ ৩ কোটি ৮০ লাখ ৬০ হাজার টাকা দিয়েছে ত্রাণ মন্ত্রণালয়।  এর বাইরেও ৫ হাজার ৯০০ বান্ডিল টিন ও গৃহনির্মাণের জন্য নগদ সহায়তা বাবদ দেওয়া হয়েছে এক কোটি ৭৭ লাখ টাকা। এক কোটি ৬ হাজার ৮৬৯টি পরিবারের মাঝে দেওয়া হয়েছে এক লাখ ৬৮ হাজার মেট্রিক টন ভিজিএফ (ভালনারেবল গ্রæপ ফিডিং) চাল। এর বাইরে এক লাখ ৯৮ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার দেওয়া হয়েছে। কোভিড ও আম্পান মিলিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে এসব বিতরণ করা হয়েছে। গত ১৩ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী ১৭ হাজার ৫টি দুর্যোগ সহনীয় গৃহ উদ্বোধন করেছেন, যা সাধারণ মানুষকে দেওয়া হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।



« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক: আলহাজ্ব মিজানুর রহমান, উপদেষ্টা সম্পাদক: এ. কে. এম জায়েদ হোসেন খান, নির্বাহী সম্পাদক: নাজমূল হক সরকার।
সম্পাদক ও প্রকাশক কর্তৃক শরীয়তপুর প্রিন্টিং প্রেস, ২৩৪ ফকিরাপুল, ঢাকা থেকে মুদ্রিত।
সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : মুন গ্রুপ, লেভেল-১৭, সানমুন স্টার টাওয়ার ৩৭ দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত।, ফোন: ০২-৯৫৮৪১২৪-৫, ফ্যাক্স: ৯৫৮৪১২৩
ওয়েবসাইট : www.dailybartoman.com ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Developed & Maintainance by i2soft